প্রতারণার স্বীকার হয়ে গর্ভবতী মা ও সন্তানের মৃত্যু

রক্তদান এক মহৎ কাজ। অনেকেই আজ এগিয়ে আসছে স্বেচ্ছায় রক্তদানের জন্য। মৃত্যু শরণাপন্ন অনেক রোগীই আলোর মুখ দেখছেন এই স্বেচ্ছাসেবীদের জন্য। কিন্তু অনেকেই আবার এই প্রতারণার স্বীকার হচ্ছেন এই কারণে। অনেককেই ফোন দিয়ে জানানো হয় যে রক্ত দেওয়ার কথা,সেজন্য বেশ বড় পরিমাণ অর্থ দাবি করা হয়। নিরুপায় হয়ে আগেই তারা বিকাশের মাধ্যমে অর্থ প্রদাণ করে। আবার অনেকেই বিনা স্বার্থে রক্তদান করতে রাজি হয়। মিরপুর ইসলামি ব্যাংক হাসপাতালে বিকেল ৪ টায় সালেহা বেগম (৪৩) এর সিজারের মাধ্যমে অপারেশনের সময় ঠিক হয়। চিকিৎতসকদের পরামর্শ অনু্যায়ী অপারেশনের জন্য জরুরী ভিত্তিতে AB+ রক্তের প্রয়োজনথ।সালেহা বেগমের ভাই সিরাজ(২৪) এ ব্যাপারে ফেসবুকে রক্তদান সম্পর্কিত এক গ্রুপে পোস্ট দেয়। তা দেখে উত্তরা মাইলস্টোন কলেজের এক ছাত্র স্বেচ্ছায় রক্ত দিতে উৎসাহী হয়। হাসপাতালেরসময় অনুযায়ী ৪.৩০ নাগাদ অপারেশন, তার ৪ টার মধ্যে ঊপস্থিত থবার কথা জানায়।সিরাজের সাথে কথা বলে জানা যায় বারংবার ফোন করা সত্ত্বেও তার নাগাল পাওয়া যায় না এবং তার দেখা পাওয়া যায় না। এতে করে সেভাবেই অপরেশন করা হয় এবং দূর্ভাগ্যজক ভাবে মা ও সন্তান দুজনএর কাউকে বাঁচানো সম্ভব হয় না। এমন অনেক প্রতারণামূলক ঘটনাই আমাদের আশেপাশে ঘটছে কিন্তু দেখার কেউ নেই। আসুন সবাই সামান্য অর্থলোভে প্রতারণা না করে স্বেচ্ছায় রক্তদানে উৎসাহিত হই এবং এসব প্রতারক চক্রকে প্রতিহত করি।