পারমিতা’র জীবনের বাস্তবতা

 Barish Haque
বারিশ হক

একজন নারীর জীবনের কঠিন মুহুর্তের বাস্তবতা আর একটি ছেলের বেড়ে ওঠার সময়ের চিন্তাধারা এ দুটি ঘটনাকে এক সুতোয় গেথে মাসুদুল হক নির্মাণ করেছেন স্বল্প দৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র “পারমিতা” আর এ গল্পের পারমিতা চরিত্রে অসাধারণ অভিনয় করেছেন অনিন্দ্য সুন্দরী নৃত্যশিল্পি এবং ভিবগেয়র ফ্যাশন বুথ এর ব্রান্ড এম্বাসেডর বারিশ হক। এ ছাড়া বারিশ হক এর বিপরীত এ অভিনয় করেছেন সাদাব সৃজন।

২২ মিনিট ৪৭ সেকেন্ডের এ স্বল্প দৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রটি নির্মাণ করা হয়েছে জিরো বাজেটে। সকলেই মিলে সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকেই কাজটি করেছেন। শুটিং করা হয়েছিল জাহাঙ্গির নগর বিশ্ববিদ্যালয়ে। পানির ভেতরে ক্যামেরা নিয়েও শুট করা হয়েছে।

বারিশ জানিয়েছেন, তিনি অত্যন্ত আনন্দের সাথে এ কাজটি করেছেন। এ ছাড়া সকলেই কাজটি করেছেন অত্যন্ত আনন্দের সাথেই।

মিরপুর মিলনায়তনে প্রথম প্রদর্শন করা হয় এটি। বেশ কয়েকটি ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে প্রদর্শন করা হয়েছে এটি এবং অত্যন্ত জনপ্রিয়তা পায় এটি। আন্তর্জাতিক ফিল্ম ফেস্টিভ্যালেও প্রদর্শন করা হয়েছে এই অসাধারণ স্বল্প দৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রটি।

মহাকাশে বাংলাদেশের প্রথম ন্যানো স্যাটেলাইট

মহাকাশে উৎক্ষেপণ করা হয়েছে বাংলাদেশের প্রথম ন্যানো স্যাটেলাইট “ব্র্যাক অন্বেষা।” মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কেনেডি স্পেস সেন্টার থেকে ৪ই জুন রোববার বাংলাদেশ সময় ভোর ৩টা ৭ মিনিটে স্যাটেলাইটটির সফল উৎক্ষেপণ করা হয়। এটি স্পেসএক্স ফ্যালকন-৯ রকেটে চড়ে আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনের (আইএসএস) উদ্দেশে রওনা হয়েছে। আইএসএসে অবস্থানরত নভোচারীরা ৪৮ ঘন্টার মাঝে বাংলাদেশি স্যাটেলাইটবাহী কার্গো মহাকাশযানটি পেয়ে যাবেন এরপর তাঁরা এটিকে নিদৃস্ট কক্ষপথে পাঠাবেন।
 NASA's Earth Science Satellite

এই কৃত্রিম উপগ্রহের গ্রাউন্ড কন্ট্রোল স্টেশন ঢাকায় অবস্থিত। তাই কক্ষপথে যখনই এটি পৌঁছানোর পরে ঢাকায় বার্তা গ্রহণ শুরু হয়ে যাবে।

এটির নির্মাণকাজে অংশ নিয়েছেন রায়হানা শামস্ ইসলাম, আবদুল্লা হিল কাফি ও মাইসুন ইবনে মনোয়ার। তারা ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তড়িৎ ও ইলেকট্রনিকস প্রকৌশল বিষয়ে স্নাতক ডিগ্রি সম্পন্ন করেছেন। বর্তমানে তাঁরা জাপানের কিউশু ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজির (কিউটেক) স্নাতকোত্তর পর্বের শিক্ষার্থী। ন্যানো স্যাটেলাইট নিয়ে তারা বর্তমানে সেখানে পড়াশোনা করছেন। ব্র্যাক অন্বেষার নির্মাণে ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয় অর্থায়ন করেছে এবং কিউটেক সকল ধরণের শিক্ষা ও প্রযুক্তি সহায়তা প্রদান করেছে।