মহাকাশে বাংলাদেশের প্রথম ন্যানো স্যাটেলাইট

মহাকাশে উৎক্ষেপণ করা হয়েছে বাংলাদেশের প্রথম ন্যানো স্যাটেলাইট “ব্র্যাক অন্বেষা।” মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কেনেডি স্পেস সেন্টার থেকে ৪ই জুন রোববার বাংলাদেশ সময় ভোর ৩টা ৭ মিনিটে স্যাটেলাইটটির সফল উৎক্ষেপণ করা হয়। এটি স্পেসএক্স ফ্যালকন-৯ রকেটে চড়ে আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনের (আইএসএস) উদ্দেশে রওনা হয়েছে। আইএসএসে অবস্থানরত নভোচারীরা ৪৮ ঘন্টার মাঝে বাংলাদেশি স্যাটেলাইটবাহী কার্গো মহাকাশযানটি পেয়ে যাবেন এরপর তাঁরা এটিকে নিদৃস্ট কক্ষপথে পাঠাবেন।
 NASA's Earth Science Satellite

এই কৃত্রিম উপগ্রহের গ্রাউন্ড কন্ট্রোল স্টেশন ঢাকায় অবস্থিত। তাই কক্ষপথে যখনই এটি পৌঁছানোর পরে ঢাকায় বার্তা গ্রহণ শুরু হয়ে যাবে।

এটির নির্মাণকাজে অংশ নিয়েছেন রায়হানা শামস্ ইসলাম, আবদুল্লা হিল কাফি ও মাইসুন ইবনে মনোয়ার। তারা ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তড়িৎ ও ইলেকট্রনিকস প্রকৌশল বিষয়ে স্নাতক ডিগ্রি সম্পন্ন করেছেন। বর্তমানে তাঁরা জাপানের কিউশু ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজির (কিউটেক) স্নাতকোত্তর পর্বের শিক্ষার্থী। ন্যানো স্যাটেলাইট নিয়ে তারা বর্তমানে সেখানে পড়াশোনা করছেন। ব্র্যাক অন্বেষার নির্মাণে ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয় অর্থায়ন করেছে এবং কিউটেক সকল ধরণের শিক্ষা ও প্রযুক্তি সহায়তা প্রদান করেছে।

টনি’র কিচেনে বৈশাখী মিলনমেলা ও বাংলা খাবারের মেলা

তিনি টনি খান, বাংলাদেশ এর সেরা শেফদেরই একজন। ধানমণ্ডি ২৭ এ রয়েছে তার স্বপ্নের কিচেন। প্রায় ৫ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত এ কিচেনে তিনি প্রায়ই আয়োজন করেন বিভিন্ন উৎসবের। বরাবরের মত এবারও আয়োজন করেছিলেন বৈশাখী মিলনমেলা। আর এখানে উপস্থিত হয়েছিলেন বাংলাদেশ এর স্বনামধন্য ফটোগ্রাফার যুবাইর বিন ইকবাল, সিগনেচার রেস্টুরেন্ট এর মালিক শাহাবুদ্দিন, বিখ্যাত নারী শেফ নাফিজ ইসলাম লিপি সহ আরও অনেকেই।

অথিতিদের বরণ করে নেয়ার জন্য ছিলেন TKCI এর প্রধান বিপণন অফিসার মাহবুব আমিন নাহিয়ান এবং TKCI এর ছাত্রীরা।

hilsha fish
TKCI এর ছাত্র ছাত্রীদের হাতে তৈরি করা ইলিশ মাছ এর ভাজি
ছবিঃ যুবাইর বিন ইকবাল

উৎসবে নিমন্ত্রিত অথিতিদের জন্য রান্না করেছিলেন শেফ টনি খান এর ছাত্র-ছাত্রীরা। অথিতিদের ওয়েলকাম ড্রিঙ্কস হিসাবে রাখা হয়েছিল কাঁচা আমের টক-মিস্টি শরবত। তারা তৈরি করেছিলেন মুখরোচক বাংলা খাবার। আর পরিবেশনায় ছিল আধুনিকতার ছোঁয়া। এ সকল খাবারের মাঝে ছিল পান্তা ভাত, ইলিশ মাছ, ডাল ভর্তা, আলু ভর্তা, বেগুন ভাজি, ডিম ভাজি, মুগের ডাল, মাছের কালিয়া, নানান ধরণের চাটনি ইত্যাদি। তৈরি করা হয়েছিল বিশেষ ধরণের স্বচ্ছ নকশী কেক।

বৈশাখী খাবার
TKCI এর ছাত্র ছাত্রীদের হাতে তৈরি করা ডাল ভর্তা
ছবিঃ যুবাইর বিন ইকবাল

এ ছাড়াও অথিতিদের মনোরঞ্জন করে টনি খান ব্যবস্থা করেছিলেন, বাউল গান।

ডিজিটাল ওয়েভ ও বাংলাদেশ – গুগল বিজনেস গ্রুপ

১৮ মার্চ রবিবার গুগল বিজনেস গ্রুপ এর ডিজিটাল ওয়েভ ও বাংলাদেশ শিরোনামে একটি প্রশিক্ষণ কর্মসূচি আয়োজন করা হয় এশিয়া প্যাসিফিক বিশ্ববিদ্যালয়ে। অধিবেশনে মাইন্ড শেয়ার, ডোজি ইন্টারনেট, বুমেরাং ডিজিটাল, মেঘ ডট এনালিটক্স, টেন মিনিট স্কুল, শপ আপ, ই কমার্স এসোসিয়েশন বাংলাদেশ (ই-ক্যাব) এর বক্তাদের সাথে অংশগ্রহণ ও বক্তব্য রাখেন গুগল বিজনেস গ্রুপ এর সার্টিফাইড ওয়েব ট্রেনারগণ। প্রশিক্ষণ কর্মসুচিতে অনলাইন লার্নিং কম্বিনিং এনালিটক্স, ডিসপ্লে নেটওয়ার্ক, বাংলাদেশ এর পরিপ্রেক্ষিতে বানিজ্যক বিশ্লেষণ, গ্রাহকদের কাছে ডিজিটাল পদ্ধতিতে পণ্য পৌঁছানসহ ব্যবসায় আরও বেশি পরিমাণে অনলাইন শপ এর অংশগ্রহণ, ই কমার্স ইন্টারপ্রেনারশীপ, ব্যবসায় আরও ডিজিটাল পদ্ধতিতে ফান্ডীং করার ব্যাপারে আলোকপাত করা হয়। প্রশিক্ষণ কর্মসুচিতে অংশগ্রহণকারী ১২০ জন শিক্ষার্থীদের বিশেষভাবে ডিজিটাল ইন্টারপ্রেনারশীপ হিসাবে আরও বেশি গুগল-প্রজুক্তিসমূহ ব্যবহার করার জন্য অনুপ্রাণিত করা হয়।

গুগল বিজনেস গ্রুপ প্রগতিশীল পেশাদারদের জন্য একটি প্রতিষ্ঠান হিসাবে শুরু থেকেই স্টুডেন্ট কমিউনিটি এবং লোকাল ব্যবসা-প্রতিষ্ঠানগুলোর সামনে ওয়েব এর ব্যবহার এর সফলতা সম্পর্কে অবহিত করতে আগ্রহী।

জিবিজি সোনারগাঁও, গুগল দ্বারা পরিচালিত একটি বিশ্বব্যাপী উদ্যোগ যারা আরো বেশি বেশি ট্রেনিং সেশন, ওয়ার্কশপ ও অনুষ্ঠান আয়োজনের মাধ্যমে তরূন্দের মাঝে ইন্টারপ্রেনারশীপ এবং লিডারশীপ চড়িয়ে দেবার জন্য কাজ করে যাচ্ছে।

UODA উইক বিতর্ক প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হল সি এস ই ডিপার্টমেন্ট

প্রতিবছরের ন্যায় এবারও ইউনিভার্সিটি অব ডেভলপমেন্ট অল্টারনেটিভ (UODA) আয়োজন করেছিল UODA উইক। যেখানে আয়োজন করা হয়েছিল বিভিন্ন ধরণের প্রতিযোগিতা। তবে সবচেয়ে মূল আকর্ষণীয় প্রতিযোগিতা হচ্ছে বিতর্ক প্রতিযোগিতা। আর এ বছরের বিতর্ক প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হয়েছে কম্পিউটার সায়েন্স ও ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ। আইন বিভাগকে সেমি-ফাইনালে হারিয়ে ফাইনালে ওঠে তারা এবং সেখানে তারা লড়াই করে ইংরেজী সাহিত্য বিভাগ এর সাথে।

মানবতার জন্য এপস প্রতিযোগিতায় ইউ আই ইউ এর সাফল্য

ইন্সটিটিউট অব ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং (আইইইই) বাংলাদেশ সেকশন আয়োজন করছে মানবতার জন্য মোবাইল বা কম্পিউটার অ্যাপ্লিকেশন তৈরি ও ধারণা জমা দেওয়ার একটি প্রতিযোগিতা। ১২ আগস্ট শুরু হয়েছিল এ প্রতিযোগিতা। ভেন্যু হিসাবে ছিল ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি। প্রতিযোগিতা হয়েছিল দুটি ক্যাটেগরিতে। প্রথম ধারনা প্রদান এবং দ্বিতীয় ধারনা বাস্তবায়ন।

৮-৯ সেপ্টেম্বার মাসে চুরান্ত পর্ব অনুষ্ঠিত হবে ভারতের তামিলনাড়ুতে।

IEEE

ইউ আই ইউ এর “Team Tesseract” এতে অংশ নিয়ে অর্জন করে প্রথম রানার্স আপ হবার গৌরব। তারা “ধারনা প্রদান” ক্যাটেগরিতে অংশ নিয়েছিলেন। এ দলের সদস্য ছিলেন, হাসান সনেট, আমিত ঘোষ ও আসিফ মাহবুব।

প্রথম স্থান অধিকার করে বুয়েট এবং তৃতীয় স্থান অধিকার করে চুয়েট

Bangladeshi Wedding Photographer