বাংলাদেশ বনাম ইংল্যান্ড তৃতীয় ম্যাচ

ডি বি বি এল – রকেট সিরিজ ২০১৬ বাংলাদেশ বনাম ইংল্যান্ড তৃতীয় ম্যাচ

ভেন্যুঃ জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়াম, চট্টগ্রাম
তারিখঃ অক্টবর ১২, ২০১৬
সময়ঃ ১৪ঃ৩০ (বাংলাদেশ সময়)

টানা তিন বৃষ্টি হচ্ছে বন্দর নগরী চট্টগ্রামে। সেখানে ৩ নম্বর বিপদ সংকেত দেয়া হয়েছে আবহাওয়া অফিস থেকে। তবে এ স্টেডিয়ামের পানি নিষ্কাসন ব্যবস্থা অত্যন্ত আধুনিক। তাই ম্যাচের আগে বৃষ্টি না হলে সময়ে খেলা শুরু হবে। এ ম্যাচ নিয়ে প্রচন্ড আগ্রহ সকলেরই। ইতিমধ্যেই বিক্রি হয়ে গেছে ২২.০০০ টিকিটের সবগুলোই। প্রচুর মানুষকে খালি হাতে ফিরতে হয়েছে টিকিট না পেয়ে। ছুটির দিন হবার কারণেই দুটওর মধ্যেই পুরো স্টেডিয়াম কানায় কানায় ভরে যায়।

দর্শকদের আশা, বাংলাদেশ এ ম্যাচে জয় লাভ করবেই। তারা আনন্দ করতে করতে ফিরে যাবে সিরিজ নিয়ে। এ মাঠেই ২০১১ সালের ইংলিশদের হারিয়েছিল বাংলাদেশ। তাছাড়া দুদলের গত ৬ টি ম্যাচের ৪ টিতেই জয় পেয়েছে টাইগাররা।

বৃষ্টির কারণে টসে জয় লাভ করে ফিল্ডিং নিয়েছেন ইংলিশ অধিনায়ক জর্জ বাটলার। তবে খুব একটা সুবিধা করতে পারে নি তার বোলাররা। প্রচুর মিস ফিল্ডিং, ক্যাচ মিস এর প্রদর্শনী ছিল ইংলিশদের।

৫০ তম বারের মত ওপেনিং করতে নেমেছিলেন ইমরুল ও তামিম। ৮০ রানের পার্টনারশিপ করে দলকে এনে দিয়েছেন শুভ সূচনা।

ব্যাট করতে নেমে ৪৫ রানে ইমরুল ফিরে গেছেন। দুর্দান্ত ব্যাট করছিলেন তিনি। আদিল রশিদের স্পিনে বিভ্রান্ত হয়ে ফিরে গেছেন দারুণ ব্যাট করতে থাকা সাব্বির। তিনি করেছিলেন ৪৯ রান। রশিদের স্পিনে বিভ্রান্ত হয়ে ফিরে গেছেন এর আগে আগের ম্যাচের নীরব হিরো মাহমুদুল্লাহ।

অনেকদিন ধরেই রান পাচ্ছিলেন না মুশফিক। আজ করলেন অর্ধশতক, এবং করলেন এমন সময়ে, যখন দলের খুব প্রয়োজন। বিশাল এক ছয় মেয়ে পূর্ণ করেছেন নিজের ২৩ তম অর্ধশতক।

জয়ের জন্য ইংল্যান্ডকে করতে হবে ২৭৮। চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে এর আগে সর্বোচ্চ রান তাড়া্ করার রেকর্ড–২২৬!! ২০১১ বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডের বিপক্ষেই ২২৬ রান করে জিতেছিল বাংলাদেশ।

৫০০০ ক্লাবের সদস্য হলেন তামিম
৫০০০ রান পূর্ণ করলেন তামিম ইকবাল। ঘড়ের মাঠে দুর্দান্ত একটি বাউন্ডারি দিয়ে স্পর্শ করেন এ মাইল ফলক। চলতি সিরিজে খুব একটা রান করতে পারেন নি তামিম। প্রথম দু ম্যাচে করেছিলেন ১৭ ও ১৪। আজ রানে ফিরেছিলেন। দুর্দান্ত ব্যাট করছিলেন, হুক, পুল কি ছিল না তার ইনিংসে। কিন্তু ৪৫ রান করে আদিল রশিদের বলে ক্যাচ দিয়ে ফিরে গেছেন প্যাভিলিয়নে।

তবে শেষ পর্যন্ত ম্যাচটি হেরে গেল বাংলাদেশ নিজেদের বাজে ফিল্ডিং এর কাছে। কোনভাবেই ওদের সিঙ্গেল আটকাতে পারে নি। তাছাড়া বেশ কিছু ওভার থ্রো হয়েছে, যেখান থেকে অতিরিক্ত রান যোগ হয়েছে। ক্যাচ মিস হয়েছে কয়েকটি। যেগুলোর মাশুল দিতে হল, দু বছর পরে সিরিজ হেরে।

তবে আম্পায়ারিং নিয়ে ক্ষোভ রয়েছে দর্শকদের। বাংলাদেশের আম্পায়ার আনিসুর রহমান দুটি এল বি ডবলু আউট দেন নি। অথচ ঐ দুটি আউট ছিল, এর আগে আর একটি রিভিউ সফল হয় নি। তাই আর রিভিউও করতে পারছিল না।

বাংলাদেশ দল
তামিম ইকবাল
ইমরুল কায়েস
সাব্বির রহমান
মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ
মুশফিকুর রহিম
সাকিব আল হাসান
মোসাদ্দেক হোসাইন
নাসির হোসাইন
মাশরাফি (ক্যাপ্টেন)
তাসকিন আহমেদ
শফিউল ইসলাম

ইংল্যান্ড দল
বিলিংস
ভিন্স
বেন ডাকেট
বেয়ারস্ট
জর্জ বাটলার (ক্যাপ্টেন)
মঈন আলী
ক্রিস ওকস
আদিল রশীদ
প্লাঙ্কেট
জ্যাকব বল

সরাসরি সম্প্রচার
জিটিভি

লাইভ স্কোর
www.espncricinfo.com

Cricket

হাশিম আমলা বাংলাদেশকে সমর্থন জানালেন!!!

তৃতীয় একদিনের ম্যাচে চট্টগ্রামে আজ মুখোমুখি হতে যাচ্ছে বাংলাদেশ টাইগার ইংলিশ লায়ন। গত ম্যাচে মাঠে শরীরী লড়াইয়ের কারণে এ ম্যাচ নিয়ে চারদিক বেশ উত্তপ্ত। উত্তপ্ত ইংলিশ ও বাংলাদেশ শিবির। যদিও দুদলের অধিনায়ক বলেছেন, ঐ ঘটনার রেশ ওইখানেই শেষ। কিন্তু আজ যখন মাঠে নামবেন তখন কি একটুও মনে পরবে না!!! তবে ইংলিশ অধিনায়কের অমন কান্ডে তাকে শুনতে হয়েছে দুয়ো চারদিক থেকেই।

আজ সকাল ১১ টায় হাশিম আমলার ফেসবুক পাতা থেকে একটি পোস্ট করা হয়, “WHO WILL WIN ? England VS Bangladesh, 3rd ODI। I am supporting BANGLADESH.”

পোস্টটি মুহুর্তে ছড়িয়ে পরে। শেয়ার করা হয়েছে ২৫,০০০ এর বেশি। কিন্তু একজন প্রফেশনাল ক্রিকেটার কিভাবে এরকম করতে পারেন? এটির খোঁজ নেয়া শুরু করলে দেখা যায়, ফেসবুক পাতাটি ভুয়া। হাশিম আমলার নাম ব্যবহার করে কোন একজন ব্যাক্তি এই পাতাটি চালাচ্ছেন। ফেসবুক পাতাটি ভ্যারিফায়েড নয়। এরপর হাশিম হামলার ভ্যারিফায়েড টুইটার একাউন্ট থেকে জানা যায়, তিনি কোন ফেসবুক ও ইনস্টাগ্রাম ভ্যভহার করেন না।

উইকিপিডিয়ার হাশিম আমলা আর্টিকেলে অতিরিক্ত লিঙ্ক অংশেও শুধুমাত্র টুইটার একাউন্ট এর তথ্য রয়েছে। কোন ফেসবুক পাতার তথ্য নেই।

Cricket

দর্শক অভিব্যক্তি

ইংল্যান্ডের সাথে রকেট সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচে অবিস্মরণীয় জয় এর পরে বিভিন্ন দর্শক সোশ্যাল মিডিয়ায় জানিয়েছেন তাদের অভিব্যক্তি। এরকম কয়েকজন এর অভিব্যক্তি-

আমি ক্রিকেট খেলা দেখিনা এমনকি বুঝিওনা তবে আমার বাবা-মা’র চিৎকার আর আনন্দ দেখতে ভালোই লাগে মনে হয় দেশপ্রেম এবং পিতা-মাতার প্রতি ভালোবাসা মিলে মিশে একাকার রংধনু সাত রঙ !
বারিশ হক

জিত্তা গেসিইইই
এইবার হালার পো বাটলার মাঠে খারায়া যত খুশি Butt লার
ফয়সাল আকরাম ইথার

Breaking news
বাংলা দ্বিতীয় পত্রে ফেল করলো ব্রিটিশরা
রুমিসা রাকা

ইংল্যান্ড দলকে নিরাপত্তা দেওয়া হলেও জয় এর নিরাপত্তা দেওয়া হয় নাই।
ফজলে রাব্বি ফটিক

মাঠে খেলা দেখবো আর বাংলাদেশ জিতবে না, তা কি হয়!
আমার মাঠে যাওয়া ম্যাচে জয় প্রায় ৯৫% এর মত।
ইমরান হোসাইন

গতকাল কাবাডি বিশ্বকাপে আমাদের জাতীয় খেলায় ইংল্যন্ডকে গো হারা হারাইসি।
হেটারস উড সে, নিজেদের জাতীয় খেলায় জিতবা সেটাই তো স্বাভাবিক!
তাই আজকে ওদের জাতীয় খেলায়ও হারায় দিলাম।
খালিদ মাহমুদ সাদ

জিতে গেছি। আর নেটে লোডিং দিয়ে খেলা দেখবোনা। ম্যাশকে খুঁড়িয়ে হাঁটতে দেখলে বুকের ভেতর মোচড় দেয়। আহারে যদি একটু তেল মালিশ করে দিয়ে আসতে পারতাম। চরণ ধরিতে দিও গো মোরে।
ইফফাত ই ফারিয়া

খাং পো পুটুন… জাতীয় কুফা
রশিদ ইকবাল

The catch was in safe hands..
It can’t be miss
তানজিল জিশাদ

পাপন সাহেব কে দিয়া পানি টানানো হোক!
সাইমুম সাফায়েত আকাশ

আমি নবাব সিরাজউদ্দৌলাকে দেখি নি
আমি মাশরাফিকে দেখেছি
পলিন

অবিস্মরণীয় জয় বাংলাদেশের

এক কথায় অবিস্মরণীয় জয়। কোন কিছুর সাথে তুলনা হতে পারে না এ জয়ের। ক্রিকেট খেলায় নাকি ক্ষণে ক্ষণে রঙ বদলায়, আর রঙ বদলের এমন ম্যাচে বাংলাদেশ রাঙ্গিয়ে দিল বিজয়ের রঙ। বাংলাদেশের ইনিংস এর মাঝে মনে হচ্ছিল বাংলাদেশ হয়ত ১৫০ ই করতে পারবে না। কিন্তু নাসির এর মোসাদ্দেক এর কল্যাণে ২০০ রান যখন নিশ্চিত, এমন সময়ে মোসাদ্দেক এর বিদায় হলে অধিনায়ক মাশরাফি আসেন। ৪৪ রান করেন ২৯ বলে, যাতে ছিল তিনটি বিশাল ছক্কা। আর এতেই ইংলিশদের সামনে টার্গেট দেয়া হল, ২৩৯ রানের। ইংল্যান্ডের মত দলের জন্য এমন টার্গেট কিছুই না। কিন্তু দিনটি ছিল, মাশরাফির, দিনটি ছিল বাংলাদেশের।

তৃতীয় ওভারেই ভিন্সকে ফেরালেন ম্যাশ, পরের ওভারে সাকিব ফেরালেন ডাকেট কে শূন্য রানে। সপ্তম ওভারেই আবারও ম্যাশের আঘাত, ফেরালেন রয় কে। নবম ওভারে প্যাভিলিয়েন ফিরে গেলে স্টোকস, এবারও ম্যাশ। এরপর একে একে সকলেই ফিরে যাচ্ছিলেন। শেষ দিকে একটু প্রতিরোধের চেষ্টা করল আদিল ও বল। কিন্তু তা শুধুই ব্যবধান কমাতে পেরেছে।

অবশেষে ৪৪ তম ওভারের চতুর্থ বলে ম্যাশকে তুলে মারতে গিয়েছিল জ্যাকব বল। কিন্তু তা জমা পড়ল ফিনিশার নাসির এর বিশ্বস্ত হাতে। আর রচিত হল বাংলাদেশের এক অবিস্মরণীয় জয়। ২০৪ রানে শেষ হল ইংলিশ ইনিংস। ৩৪ রানের পরাজয় নিয়ে মাঠ ছাড়ল ইংলিশ দল।

কাগজে কলমে হয়ত লেখা থাকবে, ৩৪ রানের পরাজয়। কিন্তু কিভাবে খাদের কিনারা থেকে বাংলাদেশ ফিরে এসেছে। আর সেই খাদে আবার ইংলিশদের ফেলে দিয়েছে, ম্যাশ, তাসকিন আর সাকিবদের গগনবিদারী চিৎকার কি লেখা থাকবে সেখানে? সেখানে কি লেখা থাকবে, ম্যাশের অতিমানবীয় অধিনায়কোচিত আচরণ? এ ম্যাচের পর যদি বলা হয়, ম্যাশের তুলনা শুধুই ম্যাশ, সেটা কি ভুল হবে? যদি কাওকে জিজ্ঞাসা করা হয়, অধিনায়ক এর সংজ্ঞা কি? এর উত্তরে যদি বলা হয়, ম্যাশ, সেটা কি খুব বাড়াবাড়ি হবে?

উপেক্ষিত নাসির, স্কোয়াডে থাকেন, কিন্তু একাদশে সুযোগ দেয়া হয় না। ফিনিশার খ্যাত নাসির এর জন্য তা কেবলই অবমাননা। পাপন সংবাদ সম্মেলনে জানিয়ে দিলেন, কার জায়গায় খেলবেন? সোশ্যাল মিডিয়ায় চারদিক থেকে সকলেই সোচ্চার, তারা নাসিরকে চায়। অবশেষে সুযোগ পেলেন নাসির। এক বছর পরে খেলার সুযোগ পেয়ে জানিয়ে দিলেন, নির্বাচকরা কতটাই অবিচার করেছেন তার উপরে। যখন একটি রানকেও অনেক অনেক বেশি প্রয়োজন মনে হচ্ছিল, তখন তিনি করলেন অপরাজিত ২৭, এবং তা খলেলেন ২৭ টি বল খেলেই। সেই সঙ্গে দিলেন অধিনায়ক ম্যাশকে যোগ্য সঙ। বোলিং এর সময়ে আরও উজ্জ্বল তিনি। ১০ ওভার বলে করে একটি উইকেট পেলেন এবং তাও সেটি মঈন আলীর মূল্যবান উইকেট। সঙ্গে একটি মেডেন। এমনকি তার দশ ওভারে মাত্র একটি বাউন্ডারি পেয়েছে ইংলিশ ব্যাটসম্যানরা। আর সব শেষে জ্যাকব বলের ক্যাচ। যেভাবে ম্যাচটি ফিনিশ করলেন, তাকে বলাই যায়, দ্যা গ্রেট ফিনিশার।

মাত্র ২৯ বলে ৪৪ রান আর ২৯ রানে ৪ উইকেট, অধিনায়ক এর এমন প্রদর্শনীর পরে ম্যান অফ দা ম্যাচ এর পুরস্কারটা একমাত্র তার হাতেই মানায়।

স্কোরঃ www.espncricinfo.com

Cricket

পাকিস্তান সুপার লীগে বাংলাদেশ এর খেলোয়াড়দের তালিকা

পাকিস্তান সুপার লীগে বাংলাদেশ এর দশজন খেলোয়াড় ডাক পেয়েছেন। এ বছরের আসরও বসবে সংযুক্ত আরব আমিরাতে। তবে ফাইনাল হবে লাহোরে। ৫টি দল প্রতিযোগিতা করবে এবারের আসরে।

এবার প্রথম সাব্বির রহমান ও শুভাগত হোম রয়েছেন প্লেয়ার্স ড্রাফটে।

প্লাটিনাম ক্যাটেগরিতে রয়েছেন সাকিব আল হাসান। বাংলাদেশ থেকে একামত্র তিনিি রয়েছেন এ ক্যাটেগরিতে। এ ক্যাটেগরির খেলোয়াড়দের মূল্য ১ লাখ ৪০ হাজার ডলার।

ডায়মন্ড ক্যাটেগরিতে নেই কোন বাংলাদেশী খেলোয়াড়।

গোল্ড ক্যাটেগরিতে রয়েছে মুস্তাফিজুর রহমান, শাহরিয়ার নাফীস ও তামিম ইকবাল। ৫০ হাজার ডলার মূল্য ধরা হয়েছে এ ক্যাটেগরির খেলোয়াড়দের।

সিলভার ক্যাটেগরিতে থাকছেন এনামুল হক, ইমরুল কায়েস, মুমিনুল হক, সাব্বির রহমান, শুভাগত হোম ও সৌম্য সরকার। এ ক্যাটেগরির খেলোয়াড়দের মূল্য দশ হাজার ডলার।

সাকিব, তামিম, মুশফিক ও মুস্তাফিজ গতবার দল পেয়েছিলেন। তবে ইনজুরির কারণে খেলেননি মুস্তাফিজ।

Cricket

বিসিবি একাদশ বনাম ইংল্যান্ড একাদশ

ইংল্যান্ড একাদশ এর সাথে বিসিবি একাদশ এর একমাত্র প্রস্তুতি ম্যাচে ৯ উইকেটে ৩০৯ রানের বড় সংগ্রহ করেছে বিসিবি একাদশ। ম্যাচে ইমরুল কায়েস ১২১, মুশফিকুর ৫১ ও নাসির হোসাইন ৪৬ রান করেন। তবে রান পাননি সৌম্য। মাত্র ৭ রান করে ফিরে গেছেন।

ক্রিস ওকস পেয়েছেন ৩ উইকেট। উইলি ও স্টোকস দুটি করে উইকেট পেয়েছেন। ম্যাচে সবচেয়ে খরুচে বলার ছিলেন আদিল রশিদ। তিনি ১০ অভারে ৭৬ রান দিয়ে একটি উইকেট পেয়েছেন।

ম্যাচটি ফতুল্লায় অনুষ্ঠিত হচ্ছে। ৭ অক্টোবর থেকে শুরু হবে ৩ ম্যাচের ওডিআই সিরিজ

ইংলিশরা এসেছে তাদের পুরো শক্তি নিয়ে। দুলদলের মাঝে তীব্র লড়াই হবে, বলে আশা করছেন ইংলিশ অধিনায়ক। বাংলাদেশ ক্যাপ্টেন মাশরাফি বলেছেন, ইংলিশ শিবির অত্যন্ত শক্তিশালী ও বিপজ্জনক। কিন্তু আমরা মাঠে নামব জয়ের লক্ষ্য নিয়ে।

দুদলের সর্বশেষ ৪ টি ওডিআই ম্যাচের ৩টিতেই বিজয় লাভ করেছে বাংলাদেশ। এর মাঝে আবার দুটি বিশ্বকাপে।

Cricket

বাংলাদেশ বনাম ইংল্যান্ড

বাংলাদেশ বনাম ইংল্যান্ড ওয়ান ডে ম্যাচ সূচি
অক্টোবার ০৭ – সময় ২ঃ৩০ – শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়াম, ঢাকা
অক্টোবার ০৯ – সময় ২ঃ৩০ – শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়াম, ঢাকা
অক্টোবার ১২ – সময় ২ঃ৩০ – জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়াম, চট্টগ্রাম

বাংলাদেশ বনাম ইংল্যান্ড ওয়ান ডে ম্যাচ সরাসরি সম্প্রচার
সরাসরি সম্প্রচারঃ

সরাসরি বাংলা ধারাভাস্যঃ রেডিও ভুমি ৯২.৮
লাইভ স্কোর: www.espncricinfo.com

বাংলাদেশ স্কোয়াড
তামিম ইকবাল, সৌম্য সরকার, ইমরুল কায়েস, মোসাদ্দেক হোসেন, সাকিব আল হাসান, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, নাসির হোসেন, মুশফিকুর রহিম, সাব্বির রহমান, মাশরাফি বিন মুর্তজা, আল আমিন হোসেন, শফিউল ইসলাম, তাসকিন আহমেদ।

শততম জয় দিয়ে আফগানদের পার্থক্যটা বুঝিয়ে দিল বাংলাদেশ

বিশ্ব ক্রিকেটের এখন প্রতিষ্ঠিত শক্তি বাংলাদেশ। ভারত, পাকিস্তান, দক্ষিন আফ্রিকা, নিউজিল্যান্ড, ইংল্যান্ড, ওয়েস্ট ইন্ডিজ সহ অনেক দলই সেই শক্তির কাছে মাথা নত করেছে। বাংলাওয়াশের তিক্ত পানীয়ও অনেকে পান করেছে। বাংলাদেশের সাকিব, তামিম, মুস্তাফিজ, আশরাফুলরা ইতিমধ্যেই করে ফেলেছেন বিশ্বজয়।

কিন্তু, বাংলাদেশ যখনই আফগানিস্তানের সাথে খেলতে নামে, তখন কি যেন একটা হয়ে যায়। প্রথম চারটি ম্যাচেই অলআউট হয়েছে বাংলাদেশ। দুবার হেরেছে। চলতি সিরিজের প্রথম ম্যাচটি জিতেছে বাংলাদেশ, তবে তা নিজেদের যোগ্যতায় নয়, ক্যাপ্টেন ম্যাশ বলেছেন, ভাগ্যগুনে জয়টা এসেছে। পরের ম্যাচে লজ্জাজনক পরাজয়। সিরিজ নির্ধারনী তৃতীয় ম্যাচ নিয়ে তাই একটু শঙ্কা জেগেছিল। কিন্তু দিনটি বাংলাদেশের, সেটি বোঝা গেল প্রথম থেকেই। তামিম তুলে নিলেন দুর্দান্ত এক শতক। টার্গেট দেয়া হল ২৮০ রানের। ম্যাশ শুরু করলেন শেজাদকে দিয়ে।

অবশেষে কাঙ্খিত ১৪১ রানের বিশাল জয় নিয়ে বাংলাদেশ তাদের আফগান বধ মিশন সমাপ্ত করল। এবার পালা ইংল্যান্ডের