সীতাকুণ্ডের বিএম ডিপোতে ভয়াবহ অগ্নিকান্ড ও বিস্ফোরণ, নিহত ৪৯ আহত ৩৫০

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে বিএম কন্টেইনার ডিপোতে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড ও বিস্ফোরণ হয়েছে। এ ঘটনায় ৪১ জন নিহত হয়েছেন এবং প্রায় ৩৫০ জন আহত হয়েছেন। এর মাঝে দমকল বাহিনীর ৯ জন সদস্য আগুন নেভাতে গিয়ে কন্টেইনার বিস্ফোরণে নিহত হন। ফায়ার সার্ভিস জানিয়েছে রাসায়নিকের তথ্য ‘না দেওয়ায়’ এতো প্রাণহানি হয়েছে। অগ্নিনির্বাপণ সংস্থাটির কর্মকর্তারা বলছেন, বিস্ফোরণ ঘটার মতো রাসায়নিক থাকার তথ্য জানা থাকলে বিকল্প উপায়ে আগুন নেভানোর উদ্যোগ নেওয়া যেত। এতে করে বিপুল প্রাণহানি এড়ানো সম্ভব হতো। সেখানে যে শেডটি পুড়ে গেছে তাতে বিপুল পরিমাণ ঝুট কাপড় ছিল। সেখান থেকেই আগুনের সূত্রপাত হয়। ওই শেডের পাশেই ছিল হাইড্রোজেন পারঅক্সাইডের কন্টেইনার। ফায়ার সার্ভিস কর্মকর্তা বলেন, “ঝুটের আগুনে ওই কন্টেইনারে থাকা হাইড্রোজেন পারঅক্সাইড উত্তপ্ত হচ্ছিল। আমাদের কর্মীরা যখন পানি ছিটাতে শুরু করেছিল তখন তারা জানতো না কোন কন্টেইনারে কী আছে। সাধারণ আগুন ভেবেই তারা পানি দিয়ে নেভাতে গিয়েছিল। এর মধ্যে একটি কন্টেইনারে পানি ছিটাতে শুরু করার ১ মিনিট ৪৭ সেকেন্ডের মাথায় বিস্ফোরণটি ঘটে। ৮৭ ঘন্টা পরে বিএম ডিপোর আগুন নিভেছে, ধ্বংস হয়েছে ৪০০ কনটেইনার।

শনিবার রাতে আগুন লাগার পর ফায়ার সার্ভিসের কুমিরা ও সীতাকুণ্ডের দুটি ইউনিটের কর্মীরা তা নেভানোর চেষ্টা করেন। কিন্তু সেখানে একের পর এক বিস্ফোরণ শুরু হলে আগুন ছড়িয়ে পড়ে। শেষ পর্যন্ত ফায়ার সার্ভিসের ২৫টি ইউনিট আগুন নেভানোর কাজে যোগ দেয়। তাদের সঙ্গে যোগ দেয় সেনাবাহিনী, নৌবাহিনীসহ বিভিন্ন সরকারি সংস্থাও।

অগ্নিকাণ্ডের পর সেখানে মালিক পক্ষের কাউকে খুঁজে পাওয়া যায়নি। ডিপোতে রাসায়নিক রাখার অনুমোদন নেওয়া ছিল না বলে জানিয়েছে পরিবেশ অধিদপ্তর এবং বিস্ফোরক অধিদপ্তর। নেদারল্যান্ডসের সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে গড়ে তোলা এই কন্টেইনার ডিপোটির বাংলাদেশি অংশীদার স্মার্ট গ্রুপ। মালিকদের একজন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নেতা মুস্তাফিজুর রহমান। তবে তথ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন বিএম ডিপো কোনো আ’লীগ নেতার নয়।

পারিবারিক ব্যবসা হলেও স্মার্ট গ্রুপের অধীনে সব ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম মুজিবুর রহমান তত্ত্বাবধান করে থকেন। এ ব্যবসায়িক গ্রুপটির তৈরি পোশাক, এলপিজি, কন্টেইনার ডিপো, খাদ্যপণ্য ও রিয়েল এস্টেট খাতে বিপুল বিনিয়োগ রয়েছে।

অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ৮ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেছে সীতাকুণ্ড থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আশরাফ সিদ্দিকী। মামলায় দুর্ঘটনায় অবহেলার অভিযোগ আনা হয়েছে এবং অজ্ঞাত ব্যক্তিদের আসামি করা হয়েছে।

top wedding photographerin bangladesh

Related posts

Leave a Comment