ফটোগ্রাফি-২৪-x-৭-এর-অসাধারণ ছবি প্রদর্শনী

দৃক গ্যালেরি, বাংলাদেশের প্রতিটি আলোকচিত্রীর প্রাণের জায়গা। আর এরকম একটি জায়গায় বাংলাদেশের আলোকচিত্রি প্রতিষ্ঠান ফটোগ্রাফি ২৪ X ৭ এর অসাধারণ ছবি প্রদর্শনী চলছে। ১৫০ টি অসাধারণ ছবি নিয়ে তাদের এ অসামান্য আয়োজন। প্রায় ৩,০০০ ছবি থেকে ছবি বাছাই করেছেন বাংলাদেশের প্রখ্যাত আলোকচিত্রি আনোয়ার হোসেন।

© সৌমেন সাহরিদ
© সৌমেন সাহরিদ

ছবি নির্বাচনের ক্ষেত্রে ছবির সৌন্দর্য, বিষয়বস্তু, কম্পজিশন ইত্যাদি বিষয়কে বিবেচনা করা হয় বলে জানিয়েছেন বিচারক আলোকচিত্রি আনোয়ার হোসেন। এ প্রদর্শনীতে রয়েছে কয়েকটি ফাইন আর্ট ছবি, একজন দর্শক ঐ ছবির সামনে গিয়ে থমকে দাড়িয়ে পড়েন। এ ছবিগুলো তাদের ভাবতে বাধ্য করেন। মনের মাঝে ঘুরপাক খেতে থাকে, ছবির বিষয়বস্তু নিয়ে। আলোকচিত্রি শুভ্র জানালেন, এটিই একজন আলোকচিত্রির সবার্থকতা। তার ছবিটি একজন দর্শকের মনে দাগ কাটতে পেরেছে।

দর্শকদের ভিড় দেখা গেল নাইমা হোসেন একটি ছবির সামনে। ঝুম বৃষ্টির মাঝে এক কিশোর কচুপাতা নিয়ে দাড়িয়ে আছে, নিজেকে বৃষ্টি থেকে বাঁচাতে। দুটি গিরগিটির প্রেম, একটি বৃক্ষের নিচে শিশুদের খেলাধুলা, কাশবনের সূর্যাস্ত, দুরন্ত সিশুদের ছুটে চলা, পাখিদের নীড়ে ফেরা এরকম আরও কত রঙ বেরঙ্গের ছবি।

ছিল বেশ কয়েকটি ফটো সিরিজ। এগুলোর মাঝে ব্যাতিক্রমধর্মী ছিল হাফিজুল ইসলাম এর সংবাদপত্র পাঠ।

বিজয়ী আলোকচিত্রী
সৌমেন সাহ্রিদ (কন্সেপচুয়াল)
ডেরিল অদ্রি রয় (প্রকৃতি)
অমিত কুমার ভৌমিক (ল্যান্ডস্কেপ)
নাইমা হোসাইন (মুখাবয়ব)
মঈন উদ্দিন আহমেদ (জীবন যাত্রা)
রিয়াজ মাহমুদ ভুইয়া (ষ্ট্রীট)
শুভ মৃধা (ফটো স্টোরি)
নাজমুল হাসান খান (ফটো সিরিজ)
রাহাতুল ইসলাম (মোবাইল ক্যামেরা)

এ প্রদর্শনী নিয়ে মন্তব্য করেন IUTPS এর ট্রেজারার ফাহিম, তিনি বলেন এটা একটা অসাধারণ প্রদর্শনী। শুভ কামনা জানিয়েছেন তিনি আয়োজকদের। সোনালী ব্যাংক কর্মকর্তা আশরাফুল তালুকদার এসেছেন স্ত্রী ও কন্যাদের নিয়ে। শখের বশে তিনি মাঝে ছবি তোলানে। কিন্তু ব্যস্তাতার কারণে ক্যামেরা নিয়ে বের হওয়া হয় না। তিনি এসেছেন এ প্রদর্শনী দেখতে, সাথে নিয়ে এসেছেন স্ত্রী ও দু কন্যাকে নিয়ে। আলাপচারিতার মাঝে তিনি জানালেন, এরকম আয়োজন আমাদের সমাজকে সুন্দর করে তুলবে। আমাদের মন ও চেতনাকে উন্নত করতে এ ধরণের আয়োজন নিঃসন্দেহে ভাল। তবে তিনি বললেন, ডি এস এল আর ক্যামেরার দাম কমে যাবার কারণে এখন অনেকেই ক্যামেরার মালিক হয়েছে, কিন্তু সে তুলনায় ফটোগ্রাফারের সংখ্যা অনেক কম। প্রথমে আমাদের শিখতে হবে। তারপরে ছবি তুলতে হবে।

সঙ্গীত শিল্পি ইমরান হোসাইন এসেছেন, এখানে। অবশ্য তার একটি ছবি নির্বাচিত হয়েছে। লালন এর আখড়ায় তুলেছিলেন, একজন ভক্তের পোরট্রেইট।

যুবাইর বিন ইকবাল

Bangladeshi Wedding Photographer

Related posts

Leave a Comment